কোন খিষ্টানকে “হ্যপি কিস্টমাস” বলাটাকি শিরক?

কোন খিষ্টানকে “হ্যপি কিস্টমাস” বলাটাকি শিরক?

আগামীকাল খৃষ্টানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব বড়দিন। এ নিয়ে সোসাল মিডিয়ায় বিভিন্ন জনের বিভিন্ন মত, এর মাঝে অনেকেই আবার “শুভ বড়দিনকে সাফ সাফ শিরক হিসাবে ঘোষণা দিয়ে দিয়েছেন। আসলেই কী তাই?

“শুভ বড়দিন” বলার অর্থ যদি ঈশ্বরের পুত্র হিসেবে যিশুর মর্যাদার প্রতি বিশ্বাস হয় (নাউজুবিল্লাহ), তাহলে এটি অন্যান্য অনেকগুলি বিষয়ের উপর প্রয়োগ করা যায়, উদাহারণস্বরুপ, ‘Goodbye’ আসলে “God be with ye”(ঈশ্বর আপনার সহায় হোক) এর সংক্ষিপ্ত রূপ। যদিও মুসলিম ও খৃষ্টানরা একই স্রষ্টায় বিশ্বাস করি এটা আপনাকে মানতে হবে যে এইখানে “goodbye” এসেছে খৃষ্টান কালচার থেকে এবং গড বলতে ওই গডকে বোঝানো হয়েছে, ইসা (আ) কে বিধর্মীরা যে গডের ছেলে বলে মানে (নাউজুবিল্লাহ)।

সুতরাং Goodbye বলাটাও কি শিরক?

অনুরূপভাবে, যদি একজন খ্রিস্টান আপনাকে বলে, “God Bless you”, আপনি কি তাকে ধরে মারা শুরু করবেন আর জিজ্ঞেস করবেন যে সে কোন God কে বুঝিয়েছে?

যখন নাজরান থেকে ৬০ জন বাইজেন্টাইন খ্রিস্টানদের একটি প্রতিনিধিদল নবী মুহাম্মাদ (সা।) কে প্রার্থনা করার জন্য একটি জায়গা চেয়েছিল, তখন দয়াল নবী নিজে মদীনার এক মসজিদের তাদের প্রার্থনা করার জন্য অনুমতি দিয়েছিলেন,

“এখানে মসজিদে আপনার প্রার্থনা করুন। এটা সৃষ্টিকর্তার কাছে পবিত্র স্থান।”

নবী (সা) কী শিরক করেছিলেন খৃষ্টানদের মসজিদে ইবাদত করতে দিয়ে যারা ইশা (আ) কে সৃষ্টিকর্তার পুত্র হিসাবে মানে? (নাউজুবিল্লাহ)
নিশ্চই না। তিনি উদারতা দেখিয়েছিলেন, এতে কেবল ইসলামের মহত্বই প্রকাশ পায়।

সুরা আন;আমের ১০৮ নাম্বার আয়াতে আল্লাহ বলেছেন,
“তোমরা তাদেরকে মন্দ বলো না, যাদের তারা আরাধনা করে আল্লাহকে ছেড়ে। তাহলে তারা ধৃষ্টতা করে অজ্ঞতাবশতঃ আল্লাহকে মন্দ বলবে। এমনিভাবে আমি প্রত্যেক সম্প্রদায়ের দৃষ্টিতে তাদের কাজ কর্ম সুশোভিত করে দিয়েছি। অতঃপর স্বীয় পালনকর্তার কাছে তাদেরকে প্রত্যাবর্তন করতে হবে। তখন তিনি তাদেরকে বলে দেবেন যা কিছু তারা করত।”

বেশিরভাহ লোক যারা ক্রিসমাস উৎসবের বিরুদ্ধে প্রচার করে তারা যুক্তি দেয় যে এটি মূলত একটি পৌত্তলিক উৎসব ছিল, এবং খ্রিস্টের জন্মের তিন শতাব্দি আগে থেকে প্রচলিত ছিল। ইতিহাস বাদ দিলে, কিভাবে একটি জন্মদিনের উইশ আমাদেরকে মুর্তিপূজারি বা খৃষ্টান বানিয়ে দেয়? আমরা তো তাদের হারাম উৎসবে জোগদান করছি না আর মুর্তিপূজাও করছি না। এছাড়া আমরা “Merry Christmas” বলার মাধ্যমে এরকম কিছুই সাক্ষ্য দিচ্ছি না যাতে ইসলামের অবমাননা হয়।

দাড়ান আরও আছে। ইংরেজী সপ্তাহের দিনগুলির নাম গ্রিক দেবতার উপর ভিত্তি করে করা – Sunday, উদাহরণস্বরূপ, সূর্যের দিন এবং Monday হল চন্দ্রের দিন ইত্যাদি ছিল।

এখন এই নামগুলি পড়ে ও মেনে নিয়ে কী আপনি শিরক করছেন?

আমীরুল মু’মিনীন আবু হাফসা উমর ইবনুল খাত্তাব (রাঃ) বলেনঃ

রাসূল সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ সকল আমল নিয়তের উপর নির্ভরশীল। আর প্রত্যেক ব্যক্তি তাই পাবে যা সে নিয়ত করবে। সুতরাং আল্লাহ ও আল্লাহর রাসূলের দিকে হিজরাত করবে তার হিজরাত আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের দিকে হবে। আর যে ব্যক্তি হিজরাত করবে দুনিয়ার উদ্দেশ্যে, কিংবা কোন মহিলাকে বিয়ে করার উদ্দেশ্যে, তাহলে তার হিজরাত হবে সেই দিকে যেদিকে সে হিজরাত করল। -বুখারী, মুসলিম।

তাখরীজুল হাদীসঃ

সহীহ বুখারী, হা/নং (১, ৬১৯৫, ৬৪৩৯) সহীহ মুসলিম, (৩৫৩, ১৯০৭) সুনান তিরমিযী (১৫৭১) নাসায়ী, (৭৪, ৩৩৮৩, ৩৭৩৪) মুসনাদু আহমদ, (১৬৩) সুনান বায়হাকী (২/১৪, ৪/১১২, ৫/৩৯) তাহযীবুল আছার-ত্ববরী, (৮৯০, ৯১০) শুআবুল ঈমান -বায়হাকী, (৬৫৬৯) দারাকুতনী, (১৩৪), সহীহ ইবনু খুযাইমা, (১৪৩) মুশকিলুল আছার-ত্বাহাবী, (৪৪৬৬)। এছাড়া আরো অনেক মুহাদ্দিস তাদের নিজ নিজ গ্রন্থে হাদীসটি বর্ণনা করেছেন।

সুতরাং আপনি এবং আল্লাহ ভাল জানেন “Happy Christmas” বলার সময় আপনার নিয়ত কি ছিল। তবে আমি যখন এটা কাউকে বলি তখন সহজভাবে ইশা (আ) এর জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাই, এর বেশি কিছু না। এটাকে কোন অকঠ্য সুষ্পষ্ঠ প্রমাণ ছাড়া শিরক বলার মাধ্যমে আপনি উল্টা পাপ করছেন কারন ইসলামে নিজের মনগড়া বা দলিনছাড়া ফতেয়া দেওয়া নিষিদ্ধ।

আমি সবসময় পরামর্শের জন্য খোলা, সঠিক দলিল সহকারে এটা ভুল প্রমান করতে পারলে আমি সেটা অবশ্যই গ্রহণ করব, মানুষ মাত্রই ভুল। দেখার বিষয় এটা যে আপনি কি প্রস্তুত এমার এই লেখাটা পড়ে বিদ্ধি বিবেচনা দিয়ে গ্রহণ করতে নাকি তোতাপাখির মত শিখিয়ে দেওয়া বুলি আওড়াবেন আর শিরক শিরক বলে চিৎকার করবেন?

BDalbum

Add comment

Your Header Sidebar area is currently empty. Hurry up and add some widgets.